ব্যস্ত জীবনে হাতে সময় নিয়ে পরিপাটি প্রাতরাশের সুযোগ আর মেলে কই? তাই হাতের কাছে সহজেই পাওয়া যায় এমন জিনিসের উপর ভরসা করেই সারতে হচ্ছে সকালের খাওয়া। এই তালিকায় মাখন মাখিয়ে ময়দার পাউরুটি সবার উপরে। বানানোও সহজ, খেয়ে ফেলাও।

কিন্তু জানেন কি, কম সময় লাগবে ভেবে বাজারচলতি যে হোয়াইট ব্রেড বা ময়দার পাউরুটি খাচ্ছেন, তাতেই লুকিয়ে রয়েছে নানা অসুখের বীজ! আদতে উপকার তো হচ্ছেই না, বরং যে সব কারণে সাদা পাউরুটির উপর আস্থা রাখছেন, সে সবের অনেক কিছুই কিন্তু মেলে না এতে। বরং চিকিৎসকদের কথা শুনলে ময়দা নয় আটার পাউরুটি যোগ করুন রোজের খাদ্যতালিকায়।

শহরের নানা ডিপার্টমেন্টাল স্টোর ও দোকানে ব্রাউন ব্রেড মিললেও গ্রাম বা মফস্‌সলে অত সহজলভ্য নয় আটার পাউরুটি। বরং সাদা পাউরুটির চটজলদি জোগান রয়েছে। তাই অনেকেই সেই পাউরুটির উপর ভরসা করতে বাধ্য হন। চিকিৎসক এব‌ং জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ সুবর্ণ গোস্বামীর মতে, সাদা পাউরুটি মোটেও অতটা স্বাস্থ্যকর নয়, যতটা ব্রাউন ব্রেড।

সুবর্ণবাবুর মতে, বিদেশে পাউরুটির চাহিদা তুঙ্গে। সেই সূত্রে আমরাও আপন করেছি এই খাদ্য। কিন্তু মনে রাখতে হবে, আমাদের দেশের বেকারিতে যে ভাবে এই পাউরুটিগুলো তৈরি হয়, বা কতটা স্বাস্থ্যকর উপায়— তা আমরা জানি না। একই কথা প্রযোজ্য ব্রাউন ব্রেডের ক্ষেত্রেও। তবু, ব্রাউন ব্রেড বা আটার পাউরুটি বেশি উপকারী, কারণ, আটায় ফাইবারের পরিমাণ ময়দার তুলনায় বেশি। বেশি ফাইভার থাকায় তা পেট ভরায়। পুষ্টিগুণেরও জোগান দেয়।

চিকিৎসকদের কথায়, আটার তুলনায় ময়দায় সোডিয়াম বেশি থাকে। যা স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকারক। সোডিয়াম কম হওয়া যেমন ভাল নয়, তেমনই মাত্রাতিরিক্ত সোডিয়ামও শরীরের জন্য ক্ষতিকর। রোজ ময়দার পাউরুটি খেলে সোডিয়ামের প্রাবল্য বাড়ে। তাই আটার পাউরুটিই রাখুন খাদ্যতালিকায়।উপায় থাকলে খান বাড়িতে বানানো রুটি।
ফাইবার কম থাকার দরুণ সাদা পাউরুটি অনেক তাড়াতাড়ি হজম হয়। সুতরাং, বারবার খাওয়ার প্রবণতা বাড়ায়। এতে খিদে তো কমেই না, উল্টে খাওয়ার প্রবণতা বাড়িয়ে ওজন বৃদ্ধি করে।


Share