এই অঞ্চলে আগুন জ্বালানোর অধিকার কারও নেই: এরদোয়ান

ইরাকে অবস্থিত যুক্তরাষ্ট্রের দুটি ঘাঁটিতে ইরানের ক্ষেপণাস্ত্র হামলার বিষয়ে তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়িপ এরদোয়ান বলেছেন, এই অঞ্চলের কেউ নতুন করে মূল্য দিতে চায় না।

তিনি বুধবার তুরস্কের ইস্তাম্বুলে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের সঙ্গে এক দ্বিপাক্ষিক বৈঠকের পর এই কথা বলেন বলে জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের শীর্ষস্থানীয় গণমাধ্যম সিএনএন। এরদোয়ান বলেন, ইরান ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যকার চলমান উত্তেজনা আমাদেরকে একটি অনাকাঙ্ক্ষিত পরিস্থিতির মুখোমুখি করতে পারে। তিনি বলেন, আমরা এই দুই দেশের মধ্যকার উত্তেজনা কমাতে কূটনীতির সব ধরনের উপায় ব্যবহার করছি। এই অঞ্চলে আগুন জ্বালানোর অধিকার নেই কারও।

তুরস্কের প্রেসিডেন্ট বলেন, এই অঞ্চলের মাটিতে যেন রক্ত ও অশ্রু না ঝরে সেজন্য সব ধরনের সম্ভাব্য পদক্ষেপ গ্রহণ করবো আমরা। তিনি আরও বলেন, তুরস্ক কোনোভাবেই চায় না যে ইরাক, সিরিয়া, লেবানন বা উপসাগরীয় অঞ্চলে কোনও প্রক্সি যুদ্ধ শুরু হোক। রাশিয়ার রাষ্ট্র-পরিচালিত সংবাদ মাধ্যম আরআইএ নভস্তি জানায়, এই দুই দেশের প্রেসিডেন্ট অনুবাদক নিয়ে রুদ্ধদ্বার বৈঠক করেন। এর আগে গত ৩ জানুয়ারি ভোররাতে ইরাকের বাগদাদ ইন্টারন্যাশনাল এয়ারপোর্টের কাছে বিমান হামলা চালায় যুক্তরাষ্ট্র।

এতে ইরানের ইসলামিক রেভল্যুশনারি গার্ড কর্পসের (আইআরজিসি) কুদস ফোর্সের প্রধান মেজর জেনারেল কাসেম সোলাইমানি নিহত হন। যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিরক্ষা বিভাগের সদরদপ্তর পেন্টাগন জানায়, মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের নির্দেশে এই হামলা চালানো হয়। অন্যদিকে ইরানের সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতা আয়াতুল্লাহ আলী খামেনেয়ি বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের জন্য কঠোর প্রতিশোধ অপেক্ষা করছে। এর জবাবে বুধবার দুটি আমেরিকান ঘাঁটিতে ইরানের ছোড়া ক্ষেপণাস্ত্রের আঘাতে ৮০ জন নিহত এবং ২০০ জন আহত হন বলে জানায় ইরানি রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *