২৫

মজিদ ও কমলা খেতে বসেছে। মজিদ বার বার দরজার দিকে সতর্ক দৃষ্টি রাখছে।
কমলা স্বামীর অস্থিরতা লক্ষ করবে..
-তারা তারি খাইয়া লন যেই দৌড়ানি দিছেন লোকটা আর এই তৃসিমানায় নাই।
না বৌ বুকটার ভিতর কেমন অস্থির অস্থির লাগতাছে। খাইয়া আবার দুই রাকাত নামাজ পরতে হইব। কে? কে ঐখানে?
মজিদ দরজার পাশে শব্দ পাবে, খাওয়া ছেড়ে সাবধানে উঠবে বাশের লাঠিটি হাতে নিবে, রহিমা মজীদের হাত ধরবে।
– আপনে যাইন না আমার ভয় করতাছে।
মজিদ সাবধানে হেটে দরজা কাছে যাবে, হঠাৎ দরজা খুলবে দেখবে সেখানে কেউ নেই। সুরা পরে বুকে ফু দিবে উঠানের দিকে যাবে। গাছের পিছনে কিছু একটা নরতে দেখবে।

এই বাইর হইয়া আয় কইতাছি।

বাশ নিয়ে দ্রুত এগিয়ে যাবে। রহিম গাছের আরাল থেকে দা নিয়ে বের হবে।
মজিদ দাড়িয়ে পরবে। বাশ উচু করে মারতে যাবে।
সাথে সাথে রহিম দা দিয়ে কোপ দিবে। মজিদ মাটিতে লুটিয়ে পরবে। কমলা চিৎকার করে কাছে আসতে চাইলে তাকেও কোপ দিবে। দুজনেই হাত পা নাড়তে নারতে মারা যাবে।

রহিম মজিদের ঘরে প্রবেশ করে ভাত খাবে।

২৬

পল মার্টিন সানির বাবা, বৃটিশ আর্মি অফিসার এ দেশে এসেছেন অফিসিয়াল কাজে। রহমত গাইডের দায়িত্বে আছেন।

একটি জিপ গাড়ি লনে পবেশ করবে।
এক জন সোলজার গাড়ি থেকে ব্রিফক্যেইস নিয়ে বাংলর ভিতরে প্রবেশ করবে।
অনেকটা রাজকিয় প্রোটকল লক্ষন করা যাবে।
মার্টিন এসে লনে রাখা চেয়ারে বসবে।
রহমত টি পটে চা নিয়ে আসবে।
বাবু বেগম সাহেবা কখন আসবেন?
রহমত এই বাঙ্গোর অনেক পুরন লোক মার্টিন ও রাবেয়া বেশ কয়েএক বার এসেছে এই বাঙলোতে
মার্টিন বেশীর ভাগ কথাই ইংরেজীতে বলেন কিন্তু বাংলা বোঝেন এবং মাঝে মাঝে বলেন..
– আই থিঙ্ক দে ইউল রিচড এট এইট ও ক্লক। আট্টা বাজবে।
– বাবু রেডিওতে তো ঝরের বার্তা দিচ্ছে। আজ নাকি খুব ঝর হবে।
– হয়াট?
– সাইক্লোন, এ সাইক্লোন উইল হিট আওয়ার কান্ট্রি ফরম ইভেনিং। আপনে কইলেন বেগম সাহেব নাকি ল কইরা আসব আমারতো খুব ভয় লাগতাছে।
– কে বলেছে সাইক্লন হবে?
– দুপুর থেকেইতো রেডিওতে বার বার বলছে। রেডিও মেসেজ..
ও মাই গড!
উঠে দাড়াবে দ্রুত বাংলোর ভিতরে চলে যাবে।

২৭

লে র কেবিন রাবেয়া কুশি কাটা দিয়ে জামা বানাচ্ছে। সানি শুয়ে এলবাম দেখছিল। এলবাম রেখে মায়ের গলা জরীয়ে ধরে জানতে চাইবে..
– মাম ল কখন ছারবে?
– লে র পাখা আনলেই ছারবে।
আই ফিল বোর, আমি একটু নিচে নামি?
রাবেয়ার ইচ্ছে করছিল সানিকে নিষেদ করবে কিন্তু সানি বড় হয়েছে বিলেতে আর বিলেতে
সন্তানদের আবদারে সহজে না শব্দটি ব্যাবহার করে না…
– সাথে গার্ড কাউকে নিয়ে যাও।
– কাউকে লাগবে না। আমি কাছেই থাকব দুরে যাব না।
– ঠিক আছে যাও।
– থাঙ্ক ইউ।
সানি ক্যামেরা হাতে বের হয়ে যাবে।